fbpx

টাকার অভাবে বিনা চিকিৎসায় ধুঁকছেন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি

২০১৬ সালের ৬ ডিসেম্বর ব্রেইন স্ট্রোক করার পর থেকে ঠিকমতো কথা বলতে পারেন না তিনি। অকেজো হয়ে পড়েছে ডান হাতটি। ডান পায়েও শক্তি পান না তিনি। বাড়িতে প্যারালাইসিসে পড়ে আছেন বৃদ্ধ বাবা তোফাজ্জল হোসেন (৮৫)। মা মাহামুদা বেগমও (৭৫) বয়সের ভারে শয্যাশায়ী। বলছি দিনাজপুর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি দবিরুল ইসলামের কথা।

বর্তমানে বাড়ির পাশে একটি দোকান ঘরে মাথার উপর বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি নিয়ে সময় কাটছে দবিরুলের। এ অবস্থায় তাদের সংসার চলছে সাব রেজিস্ট্রি অফিসে মাস্টাররোলে চাকরি করা স্ত্রী রুনা লায়লার উপার্জিত অর্থ দিয়ে।

ছাত্রলীগের সাবেক এই সভাপতি এক সময় অসংখ্য অসহায় মানুষের বিপদে পাশে দাঁড়িয়েছেন। অথচ আজ তার খোঁজ নেয় না কেউ। লোক লজ্জায় কারও কাছে বলতে পারেন না নিজের অসহায়ত্বের কথা। অর্থের অভাবে না পারছেন বাবা-মায়ের চিকিৎসা করাতে, না পারছেন নিজের।

দিনাজপুর শহরের ৯নং ওয়ার্ডের খেড়পট্রির বাসিন্দা দবিরুল ইসলাম ১৯৮৮ ও ১৯৯১ সালে পরপর দুই বার নির্বাচিত হয়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, দিনাজপুর জেলা শাখার দপ্তর সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯৪ সালে দিনাজপুর জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও ১৯৯৮ সালের ১৩ অক্টোবর সভাপতি নির্বাচিত হন। এরপর কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নির্বাহী সদস্য ছিলেন।

২০০৫ সালে জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ কমিটির যুগ্ম আহ্বায়কেরও দায়িত্ব পান। বর্তমানে দিনাজপুর শহর আওয়ামী লীগের নির্বাহী কমিটির সদস্য তিনি। অথচ, অর্থের অভাবে এই সৈনিক দিনাজপুরে চিকিৎসক দেখানোর পর যে ওষুধ কিনে খাবেন এ অবস্থাও তার নেই।

২০১৬ সালের ৬ ডিসেম্বর থেকে দবিরুল ইসলাম অসুস্থ অবস্থায় রয়েছেন। বর্তমানে তিনি দিনাজপুর মেডিকেল কলেজের অধ্যাপক মাহাবুবুল আলমের চিকিৎসায় রয়েছেন।ব র্তমানে তিনি দিনাজপুর মেডিকেল কলেজের অধ্যাপক মাহাবুবুল আলমের চিকিৎসায় রয়েছেন। তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন ০১৭৩৫৮২৩২৩৬ নম্বরে .।

লোকলজ্জায় কারো কাছে নিজের অসহায়ত্বের কথাও বলতে পারেন না। অর্থাভাবে বিনা চিকিৎসায় দিন কাটছে তাঁর। পারছেন না অসুস্থ মা-বাবার চিকিৎসা করাতে। সংসার চলছে সহধর্মিণীর উপার্জিত অর্থ দিয়ে।

Optimization WordPress Plugins & Solutions by W3 EDGE