নিজের ছেলেকে মৃত্যু সজ্জায় রেখে উনি যান…

হ্যা মাশরাফি দেশদ্রোহী!

–>দেশের হয়ে সাতটা সার্জারি নিয়েও দেশের জন্য খেলে গেছেন।

হ্যা মাশরাফি লোভী!

–>৫ কোটি টাকার গাড়ি না নিয়ে অসহায় মানুষদের চিকিৎসার জন্য এম্বুলেন্স নিয়েছে।

হ্যা মাশরাফি ভারতীয় দালাল!

–>ভারতের সাথে প্রথম দুইজয়ের ম্যাচ সেরা উনি আর শেষ দুই জয়ের ক্যাপ্টিন উনি। উনিই বার বার ভারতের অপমান গুলো কথার জবাব দিয়েও দিয়েছেন।

হ্যা মাশরাফি মিরজাফর!

–>টিটোয়েন্টি ক্রিকেটে রুবেল ভালো করার পরেও এক ম্যাচ বাদ পড়ায় উনি অবসর জানান। পরে ভক্ত আর ক্রিকেট বোর্ড আর প্রধানমন্ত্রীর রিকুয়েস্ট কেও তাকে ফিরাতে পারেনি। কথার নড়চড় করেনি ।

হ্যা মাশরাফি টাকার লোভী!

–>একবার ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে ইঞ্জুরির জন্য কিছু ম্যাচ খেলতে পারেনি টাকা ঠিকি পেয়েছিলেন। পরের বার টাকা না নিয়েই পুরো আসর খেলে দিয়েছেন যদিও টিম মালিক টাকা দিতেও চেয়েছেন।

হ্যা মাশরাফি বেইমান!

–>সে বেইমানি করেছেন তার পায়ের সাথে। ৭ টা সার্জারির পর যখন আরেকটা সার্জারির পর পংগুত্বের আশংকা থাকে তখনো সে বেইমানের মত দেশের জন্য খেলেন।

হ্যা মাশরাফি স্বার্থপর!

–>নিজের ছেলেকে মৃত্যু সজ্জায় রেখে উনি যান ২০১৫ বিশ্বকাপ খেলতে। ক্রিকেট বোর্ড থেকে না চাইতেও ছুটি দেওয়া হয়। উনি বলেন,” আমি নামাজ পরে আল্লাহর কাছে বলেছি এখন আর কিছু হবে না। ”

পরবর্তী প্রজন্মের শিশুদের আশাকরি জানাবেন যে, মাশরাফির মত দেশদ্রোহী, লোভী, ভারতীয় দালাল,মিরজাফর,বেইমান,স্বার্থপরের খেলা আমরা দেখেছি। সে তার ১৮ বছর ক্যারিয়ারে দেশকে কিছুই দিতে পারেনি শুধু নিজের কথাই ভেবেছেন।

বাংলাদেশের প্রতিটি জেলায় উনি ৬ তলা করে একটা বাসা গড়েছেন তবে অসহায়দের জন্য কিছু করেননি। উনার মাসিক বেতনের ৯০% ভারতে পাঠাতো বাংলাদেশের জন্য কিছু করতো না।

এর থেকে বেশি কিছু বাঙ্গালি দ্বারা আশাকরাটাও বোকামি!

ফেসবুক থেকে সংগৃহীত

আপনি দেখেছেন কি?

‘ন্যূনতম ভদ্রতাটুকু দেখাতেও আপনাদের এত কুণ্ঠা কেন’

কেউ আপনাকে ব্যক্তিগত নম্বর দেয়া মানে হচ্ছে তিনি আপনাকে কাছের মনে করে অগ্রাধিকার দিচ্ছেন! সেই …

Optimization WordPress Plugins & Solutions by W3 EDGE