ভৈরবে বিএনপির সভায় আ’লীগের হামলা-ভাংচুর, পুলিশসহ আহত ১২

ভৈরবে বিএনপির সভায় হামলার ঘটনা নিয়ে আওয়ামী লীগ-বিএনপি সংঘর্ষে পুলিশসহ ১২ জন আহত হয়েছেন। এ সময় কয়েকটি দোকানসহ বিএনপি অফিস ভাঙচুর করা হয়। রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টায় শহরের চণ্ডিবের এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ সময় ভৈরব উপজেলা বিএনপির একটি নির্বাচনী কর্মিসভা চলছিল।

আহতরা হলেন- পুলিশের এসআই অভিজিৎ, কনেস্টেবল আবদুল হাকিম, কনেস্টেবল আবদুর রহমান, উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো. রফিকুল ইসলাম, ওয়ার্ড যুবদল সভাপতি আক্তার হোসেন, যুবদল নেতা জসীম উদ্দিন, পৌর যুবলীগ সভাপতি ইমন রহমান ইমন, ছাত্রলীগ নেতা রাকিব, সোহরাব, প্রান্ত, আমজাদ, সুব্রত।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। সংঘর্ষের সময় আক্তার নামের এক ব্যক্তির ঔষধের ফার্মেসিসহ তিনটি দোকান ভাঙচুর করা হয়।
এদিকে রাত সাড়ে ৮ টায় আওয়ামী লীগ ও যুবলীগ লীগের কর্মীরা উপজেলা বিএনপির ডালপট্রির অফিস ও একটি ভেনিস বাংলা রেস্টুরেন্ট ভাংচুর করে।

এ বিষয়ে ভৈরব পৌর বিএনপির সভাপতি হাজি শাহীন জানান, আসন্ন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে চন্ডিবের এলাকায় বিএনপির একটি কর্মিসভায় আওয়ামী লীগের কর্মীরা হামলা চালালে এ ঘটনা ঘটে।

উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো. রফিকুল ইসলাম অভিযোগ করেন যুবলীগ ও ছাত্রলীগের কর্মীরা আমাদের সভার ওপর আতর্কিতভাবে হামলা চালায়। তারা ভৈরব বাজারে গিয়ে বিএনপির অফিসসহ একটি রেস্টুরেন্ট ভাংচুর করে বলে তিনি জানান।

ভৈরব পৌর যুবলীগের সভাপতি ইমরান হোসেন ইমন জানান, আমাদের কর্মীরা ছাত্রলীগের একটি অনুষ্ঠানের দাওয়াত দিতে চন্ডিবের গেলে বিএনপির কর্মীরা আমাদের কর্মীর ওপর আক্রমণ করে।

ভৈরব থানার উপ-পরিদর্শক অভিজিৎ জানান, দু’দলের সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। এ সময় সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে তিন পুলিশও আহত হয় বলে তিনি জানান।

আপনি দেখেছেন কি?

ফুটেজ দেখে হামলাকারীদের চিহ্নিত করেছেন নিপুণ রায়

রিমান্ডে থাকা বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট নিপুণ রায় চৌধুরী ভিডিও ফুটেজ দেখে হামলাকারীদের …

Optimization WordPress Plugins & Solutions by W3 EDGE